সাতক্ষীরায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো: আসাদুজ্জামানের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত


 

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সাতক্ষীরা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো:আসাদুজ্জামানের বিদায়ী সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। বৃহম্পতিবার সন্ধায় সাতক্ষীরা পুলিশ লাইন্সের সন্মেলন কক্ষে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো: আসাদুজ্জামান কে বিদায়ী সংবর্ধনা প্রদান করেন সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার) ও সাতক্ষীরা পুনাক সভানেত্রী (পুলিশ সুপারের সহধর্মিণী) মিসেস নাদিয়া আফরোজ।

একই সময় সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেড কোয়াটার সার্কেল) মো: জিয়াউর রহমান কে ও বিদায়ী সংবর্ধনা জানান পুলিশ সুপার ও পুনাক সভানেত্রী।

বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন হেড কোয়াটার সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: জিয়াউর রহমান, সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার সহকারী পুলিশ সুপার মো:সাইফুল ইসলাম, বিশেষ শাখার ডিআইওয়ান মিজানুর রহমান, জেলা ডিবির অফিসার ইনচার্জ ইয়াছিন আলম চৌধুরী, সদর থানার ওসি আসাদুজ্জামান, ট্রাফিক পুলিশের টিআই হারুণ উর রশিদ, আরআই -১ সহ বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ সদস্যগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসংঙ্গত : অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জামান বাংলাদেশ পুলিশ বিসিএস ক্যাডারের ২৮ তম বিসিএস অফিসার।তিনি সাতক্ষীরা জেলায় ২১-০৭-২০২০ খ্রিষ্টাব্দ তারিখে যোগদান করেন। যোগদানের ৫ মাস ৭ দিনের মাথায় তিনি সিলেট জেলায় বদলী হন ইং ২৬-১২-২০২০ খ্রিষ্টাব্দ তারিখে।

এই ৫ মাস ৭ দিনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রশাসন মো:আসাদুজ্জামান তার কর্মদক্ষতা ও হাস্যোজ্জল আচার-আচারণের মধ্য  দিয়ে জেলার সকল স্থরের মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন।এছাড়া অপরাদ দমনে বিশেষ অবদান রাখায় পুলিশ সুপারের নিকট থেকে কয়েক দফায় সন্মাননা ক্রেস্ট অর্জন করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জামান।

এই ৫ মাস ৭ দিনে সাতক্ষীরা জেলার আলফা টু হিসাবে তিনি ৫ টি ক্লুলেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করে আসামীদের আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছেন।

ক্লুলেস মাডার গুলোর মধ্যে সাতক্ষীরা শহরের বাকালে ইটের ভাটায় সেফটি ট্যাংকির ভিতর থেকে ইজিবাহক চালকের লাশ উদ্ধার পূর্বক মুল খুনি কে আটকে করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করেছেন তিনি।দ্বিতীয় মাডারটি ছিলো কলারোয়া উপজেলার মোসলেম কে জবাই করে গলা কেটে হত্যার প্রধান আসামী কে আটক করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: আসাদুজ্জামান। এই সাথে আশাশুনির চন্দ্র শেখোর হত্যার আসামী আটক, কালিগজ্ঞের ভগ্নিপতি হত্যার ঘটনায় পুলিশ সদস্য কে আটক করে তিনি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সম্প্রতি সাতক্ষীরা সদর উপজেলাধীন অপর একটি ক্লুলেস মামলায় পরোকিয়ার জেরে খুনের ঘটনায় আসামী আটক করে তিনি শহর ব্যাপি চমক সৃষ্টি করেছেন।এছাড়া সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত সম্প্রতি উপ-নির্বাচনে তিনি সততা ও নিষ্ঠার সাথে পেশাগত দায়িত্ব পালন করে অবাধ-সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন করেছেন।

বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আপডেট সাতক্ষীরা ডটকম কে জানান, সাতক্ষীরায় এই ৫ মাস ৭ দিনে যেটুকু সফলতা অর্জন করেছি সেটা সম্ভব হয়েছে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার) স্যারের জন্য।এজন্য আমি  ব্যক্তিগত ভাবে পুলিশ সুপার মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। পাসাপাশি আমি আমার সকল সহকর্মী যারা আমাকে প্রত্যেকটি কাজে আন্তরিক ভাবে সহযোগীতা করেছেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page