ডুমুরিয়ায় অস্ত্রসহ ডাকাতির প্রস্তুতি র মামলার মাস্টার মাইন্ড লিটন দেওয়ান আটক

দ্বারা zime
০ মন্তব্য 374 দর্শন

 

সাতক্ষীরা মহাসড়কের ডুমুরিয়ার গুটুদিয়া এলাকায় পিস্তল ও দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাতির প্রস্তুতির ঘটনার মামলার প্রধান হোতা লিটন দেওয়ান কে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।বৃহস্পতিবার ভোর রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে ওই মামলার আরো ৪ জন আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়। থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের ডুমুরিয়ার জিলেরডাঙ্গা নামক স্হানে গত মঙ্গলবার দিবাগর রাত আড়াইটার দিকে একদল লোক ডাকাতির প্রস্তুুতি নিচ্ছিল। এ সময় থানা পুলিশের টহলটীম তাদের চ্যালেঞ্জ করে দলের ৪জন সদস্যকে আটক করতে সক্ষম হলেও অন্যানরা পালিয়ে যায়। ধৃত ডাকাতদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক ১টি পিস্তল, ১টি দেশীয় তৈরী ওয়ান শুটারগান, ২টি ম্যাগজিন এবং ডাকাতির কাজে ব্যবহ্রত ১টি ট্রাক, ১টি মোটর সাইকেল, ২টি মোবাইল ফোন সেট এবং ‘পুলিশ’ লেখা সম্বলিত একটি ব্যাগ জব্দ করে। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে ডুমুরিয়া থানায় ডাকাতি ও অস্ত্র আইনে পৃথক ভাবে দু’টি মামলা রুজু হয়। ওই ঘটনায় ডাকাত দলের প্রধান হোতা পলাতক আসামী থানার মিকশিমিল গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে লিটন দেওয়ান(৩২) কে আজ গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হলো কয়রা থানার মহেশ্বরীপুর এলাকার মৃত নিছার ঢালীর ছেলে কামাল ঢালী (৩১), ডুমুরিয়া থানার টোলনা দক্ষিণপাড়া এলাকার মুজিবর বিশ্বাসের ছেলে জিহাদুল বিশ্বাস (২৮) ও একই এলাকার সাত্তার বিশ্বাসের ছেলে শামীম বিশ্বাস (৩১), যশোর জেলার কেশবপুর থানার বসুন্দিয়া গ্রামের কাশেম আলী সরদারের ছেলে মাহাবুর রহমান (৩৯)।

এ প্রসঙ্গে ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেখ কনি মিয়া (বিপিএম) জানান, ডাকাতির উদ্দ্যেশে একদল দুস্কৃতিকারী খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের গুটুদিয়া এলাকায় ঘুরাঘুরি করছিলো। এ সময় তাদের চ্যালেঞ্জ করে ২টি অস্ত্র, ম্যাগজিনসহ আটক এবং ডাকাতি কাজে ব্যবহারের জন্যে মোটর সাইকেল, ট্রাকসহ অন্যান সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এরা মুলত একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দল। প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে, এ দলে ৮/৯ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী রয়েছে। ডাকাতি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে এরা জড়িত। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে ডুমুরিয়া থানায় পৃথক ভাবে ডাকাতির প্রস্তুতি ও অস্ত্র আইনে দু’টি মামলা রুজ করে আসামীদের জেল হাজতে প্রেরণ এবং দু’টি মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।





০ মন্তব্য

আরও পোস্ট পড়ুন

মতামত দিন