৫ম ধাপে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেলো সাতক্ষীরার ১৪০টি ভুমিহীন পরিবার

দ্বারা zime
০ মন্তব্য 38 দর্শন
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্যোগ নেন দেশে একটি মানুষও গৃহহীন-ভূমিহীন থাকবে না। সেই ধারাবাহিকতায় এবার পঞ্চম পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে ১৮ হাজার ৫৬৬টি ঘর হস্তান্তর করা হবে।প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে আগামী ১১ জুন আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় ৫ম পর্যায়ের ২য় ধাপে জমি ও গৃহ প্রদানের কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে সাতক্ষীরায় স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের প্রেস ব্রিফিং করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির।
রোববার (০৯ জুন) দুপুর ১ টায় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে প্রেস ব্রিফিংটি অনুষ্ঠিত হয়।
প্রেস ব্রিফিং এ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে দেশের সকল ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এরই মধ্য দিয়ে সাতক্ষীরায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান সমাপ্ত হল তবে এরপরও যদি কোন ভূমিহীন কাউকে পাওয়া যায় তাহলে পরবর্তীতে ব্যবস্থা করা হবে।
 আরো বলেন, এ পর্যায়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বাংলাদেশে মোট ১৮৮ টি উপজেলায় ১৮ হাজার ৫৬৬টি একক গৃহ হস্তান্তর করবেন। এর মধ্যে সাতক্ষীরা জেলায় ৫ম পর্যায়ে আশাশুনি উপজেলায় ১৪০ টি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট একক গৃহ এবং সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় বালিথা এল্লারচর আশ্রয়ন প্রকল্পের জরাজীর্ণ ব্যারাক হাউজ প্রতিস্থাপনপূর্বক নতুনভাবে নির্মিত ১১০ টি দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট একক গৃহ হস্তান্তর করা হবে। এপর্যন্ত সাতক্ষীরা জেলায় ১ম থেকে ৪র্থ পর্যায় পর্যন্ত ৩ হাজার ২২৭টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।
এ পর্যায়ে আশাশুনি উপজেলার ১৪০ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মধ্যে উক্ত গৃহসমূহ হস্তান্তরের মাধ্যেম আশাশুনি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী গৃহহীন মানুষের মুখে হাসি এনে দিয়েছেন। প্রকল্পটিতে গৃহহীন মানুষের জন্য শুধু বাসস্থানই নয়, সুপের পানি, বিদুৎ ও স‍্যানিটেশন সুবিধাও দিয়েছেন। আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন যে, আশাশুনি উপজলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হলে সাতক্ষীরা জেলায় আর কোন ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষ থাকবে না। যার ফলে সাতক্ষীরা জেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে।
উক্ত প্রেস ব্রিফিং এ উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বিষ্ণুপদ পাল, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর মো. আরিফুজ্জামান, সাতক্ষীরা সদর নির্বাহী কর্মকর্তা শোয়াইব আহমেদ, তালা নির্বাহী আফিয়া শারমিন, আশাশুনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কৃষ্ণা রায়, শ্যামনগর নির্বাহী কর্মকর্তা নাজিবুল ইসলাম,কালিগঞ্জ নির্বাহী কর্মকর্তা দীপঙ্কর দাস, দেবহাটা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান প্রমুখ।
 ১ম থেকে ৫ম ধাপের ভূমিহীন-গৃহহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত হস্তান্তরিত জমি ও গৃহের বিস্তারিত…… 
১. এ জেলায় ১ম পর্যায়ে ২৩ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে জমির মালিকানাসহ হস্তান্তরিত গৃহের সংখ্যা ১ হাজার ১৪৮ টি।
২. ২য় পর্যায়ে ২০ জুন ২০২১ তারিখে জমির মালিকানাসহ হস্তান্তরিত গৃহের সংখ্যা ৬৬৫ টি।
৩. ৩য় পর্যায়ে জমির মালিকানাসহ হস্তান্তরিত গৃহের সংখ্যা ৮০৯ টি।
৪. ৪র্থ পর্যায়ে জমির মালিকানাসহ হস্তান্তরিত গৃহের সংখ্যা ৬০৫ টি।
৫. ৫ম পর্যায়ে জমির মালিকানাসহ হস্তান্তরিত গৃহের সংখ্যা আশাশুনি উপজেলায় ১৪০ টি।
৬. শুধুমাত্র বালিথা এল্লার চর আশ্রয়ন প্রকল্পে ১৬০ টি একক গৃহের মধ্যে ৫০ টি গৃহ ইতোমধ্যে উদ্বোধন করা হয়েছে। অবশিষ্ট ১১০ টি একক গৃহ ১১ জুন ২০২৪ তারিখে উদ্বোধন করা হবে।
৭. সাতক্ষীরা সদর উপজেলাকে ০৯ আগস্ট ২০২৩  তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
৮. কলারোয়া উপজেলাকে ২২ মার্চ ২০২৩ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
৯. তালা উপজেলাকে ২১ জুলাই ২০২২ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
১০. দেবহাটা উপজেলাকে ২২ মার্চ ২০২৩ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
১১. কালিগঞ্জ উপজেলাকে ০৯ আগস্ট ২০২৩ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
১২. শ্যামনগর উপজেলাকে ২২ মার্চ ২০২৩ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
১৩. আশাশুনি উপজেলাকে ১১ জুন ২০২৪ তারিখে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে।
১৪. সাতক্ষীরা জেলায় ৫ম পর্যায় সর্বশেষ বরাদ্দপ্রাপ্ত ১৪০ টি ঘরের জন্য বন্দোবস্ত কবুলিয়ত দলিল রেজিষ্ট্রেশন, নামজারী এবং উপকারভোগীগনের জন্য নির্মিত গৃহের গৃহ সনদ ও নাম ফলক তৈরির নিমিত্ত প্রতিটি ঘরের জন্য প্রাপ্ত বরাদ্দ ২ লক্ষ ৯৩ হাজার ৭২০ টাকা ইতোমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, আশাশুনিকে প্রদান করা হয়েছে।




০ মন্তব্য

আরও পোস্ট পড়ুন

মতামত দিন